Friday , December 14 2018

ইসলামী শরিয়তে ছেলে-মেয়েদের বিয়ের প্রকৃত বয়স কত?

ছেলে-মেয়েদের বিয়ের- একজন মুমিনের জন্য ইসলামের প্রত্যেকটি বিষয় মেনে চলা অত্যন্ত জরুরি। ইসলামের প্রতিটি হুকুমাত নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক সব বিষয় মানা জরুরি।

বিয়ে ইসলামী শরিয়তে অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। ছেলে মেয়েদের বিয়ের বয়স হলে তাদের বিয়ে দিতে হয়। তবে ঠিক কত বছর বয়স তাদের বিয়ে দিতে হয়। এ সম্পর্কে একটি বেসরকারি টিভিতে এক প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন বিশিষ্ট আলেম বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।







প্রশ্নটি হচ্ছে, শরিয়তে ছেলেমেয়েদের বিয়ের বয়স কত?

উত্তরে তিনি জানান, বিয়ের জন্য ছেলে বা মেয়েদের বয়স নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি। ইসলামী শরিয়ত যে বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছে, সেটি হলো, বিয়ের জন্য বেশি দেরি না করা। কারণ বিয়ে করতে যত দেরি করবেন, ততই অনৈতিক অথবা অশালীন কোনো কাজে সম্পৃক্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকবে।

বিয়ে বিষয়ে শরিয়তের বিধান হচ্ছে, বিয়ের ক্ষেত্রে দেরি না করা যথাসম্ভব দ্রুত বিয়ের কাজটি সম্পন্ন করা। ছেলে বা মেয়ে উপযুক্ত হলেই বিয়ে দিয়ে দিতে হবে। বিয়ের জন্য নির্দিষ্ট কোনো সময় বেঁধে দেওয়া হয়নি যে এ সময়ের মধ্যে বিয়ে করতে হবে।

তবে সামাজিক যেই নিয়ম-কানুন আছে, সেগুলোও অনুসরণ করা যেতে পারে। যদি অষ্টম শ্রেণিতে পড়া একটি ছেলেকে আপনি বিয়ের জন্য বলেন, সে তো নিজের জীবনের ব্যাপারেই এখনো সচেতন হয়নি, বিয়ের দায়-দায়িত্ব সে কীভাবে বহন করবে।

সংসার, দাম্পত্য জীবন সম্পর্কে বোঝাটাই তার জন্য কষ্টকর হয়ে যাবে। ছেলে বা মেয়ের যাতে পরিপক্বতা আসে, কিছুটা শিক্ষা-দীক্ষা হয়, সেগুলোও সামাজিকভাবে বিবেচনার বিষয় রয়েছে।

যদিও ইসলামে বয়স নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি, কিন্তু প্রাপ্তবয়স্ক না হয়ে সে বিয়ে করতে পারবে না। প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া বিয়ের প্রয়োজনীয়তার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।







পোলারা আমারে মারে, খাইতে দেয় না

টাঙ্গাইলের মধুপুরে সন্তানদের বিরুদ্ধে ৯০ বছরের বৃদ্ধ বাবাকে পাগল অপবাদ দিয়ে মারধর করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মধুপুর উপজেলার মহিষমারা ঘোনাপাড়া গ্রামে।ওই গ্রামের বৃদ্ধ শরাফত আলীকে গত রোববার ছেলে জয়নাল (২২) ও দরাজ আলী (৪০) নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, বৃদ্ধ শরাফত আলী ৭ বিঘা জমি কিনে দুইটি বাড়ি করে দুই ছেলেকে দিয়েছেন। শরাফত আলীর প্রথম স্ত্রী মারা যাওয়ার পর দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সেই ঘরে জয়নাল আবেদীন নামে আরেক ছেলে রয়েছে। শরাফত আলী ছোট ছেলের সঙ্গেই থাকতেন।

শরাফত আলী বলেন, পোলারা আমারে মারে, খাইতে দেয় না। আমার ঘর ভাইঙা দিছে। বাস্ক (বাক্স) ভাইঙা টেহা (টাকা) নিয়া গেছে।স্থানীয় মজিদ মিয়া (৫৫) বলেন, ছেলেরা শরাফতকে পাগল বলে, কিন্তু কেউ পাগল থাকলে ৭ বিঘা জমি করতে পারবে?

প্রতিবেশী হাসনা আক্তার (২৫) জানান, জয়নাল বাড়ি-ঘর ভাঙচুর করে। শরাফত মাঝে মাঝে বাড়িতে থাকেন না।শরাফত আলীর বড় ছেলে দরাজ আলী বলেন, বাবা জয়নালের কাছে থাকেন। আমাকে শধু বাড়ির জায়গা দিয়েছেন। তারপরও বাবাকে আমার কাছে থাকতে বলি। কিন্তু তিনি থাকেন না।







স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, ওই বৃদ্ধকে এর আগেও বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিল ছেলেরা। তখন বিষয়টি সমাধান করে দিয়েছিলাম। কিন্তু ছোট ছেলে জয়নালের জন্যই বারবার এমন অমানবিক ঘটনা ঘটছে।

মহিষমারা ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আব্দুল মোতালেব জানান, ওই বৃদ্ধকে আমি বয়স্ক ভাতার কার্ড দিয়েছি। এ ব্যাপারে এখনও আমাকে কেউ কিছু জানায়নি। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে অব্যশই ব্যবস্থা নেব।

এক মিনিটের কিছু আমল

জীবনের তাগিদে ব্যস্ত হয়ে যাচ্ছি আমরা। প্রতিনিয়ত কর্মব্যস্ত হয়ে থাকতে হচ্ছে আমাদের। তাই আজ এমন কিছু আমলের কথা আলোচনা করবো যেগুলো পালন করা খুব সহজ এবং সময় সাশ্রয়ী। যথাঃ

১. এক মিনিটে আপনি ‘সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি- আদাদা খালকিহি ওয়া রিযা নাফসিহি ওয়া যিনাতা আরশিহি ওয়া মিদাদা কালিমাতিহি’ পড়তে পারেন।

অর্থঃ আল্লাহর পবিত্রতা ও প্রশংসা তাঁর সৃষ্টিকুলের সংখ্যার সমান, তাঁর সন্তুষ্টির সমান, তাঁর আরশের ওজনের সমান, তাঁর বাক্যমালার কালির সমান। এ দোয়াটি ১৫ বারের বেশি পড়তে পারেন। সাধারণ তাসবীহ ও জিকিরের চেয়ে এ বাক্যগুলো পাঠ করার সওয়াব অনেকগুণ বেশি। যেমনটি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে সহীহ হাদিসে সাব্যস্ত হয়েছে।







২. এক মিনিটে আপনি আল্লাহর কাছে ১০০ বারের বেশি ইসতিগফার বা ক্ষমাপ্রার্থনা করতে পারেন। তথা ‘আস্তাগফিরুল্লাহ’ পড়তে পারেন। এটি ক্ষমাপ্রাপ্তি ও জান্নাতে প্রবেশের উপায়। এটি সুখময় জীবন, শক্তি বৃদ্ধি, বিপদ-আপদ থেকে মুক্তি, সকল কাজ সহজীকরণ, বৃষ্টি বর্ষণ, সম্পদ ও সন্তানের বৃদ্ধি ইত্যাদির মাধ্যম।

৩. এক মিনিটে আপনি সংক্ষেপে কিছু কথা বলতে পারেন, যা দ্বারা আল্লাহ হয়ত এমন কোনো কল্যাণের পথ খুলে দিবেন যা আপনি ভাবতেও পারেননি।

৪. এক মিনিটে আপনি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উপর ৫০ বার দরূদ পাঠ করতে পারেন। শুধু পড়বেন- ‘সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’। এর প্রতিদানে আল্লাহ আপনার উপর ৫০০ বার রহমত পাঠাবেন। কারণ, একবার দরুদ পাঠ করলে আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা ১০ বার এর প্রতিদান দান করেন।

৫. এক মিনিটে আপনার মন আল্লাহর কৃতজ্ঞতা, তাঁর ভালবাসা, তাঁর ভয়, তাঁর প্রতি আশা এবং তাঁর প্রেমে উদ্বেল হয়ে উঠতে পারে। এর মাধ্যমে আপনি আল্লাহর দাসত্বের স্তরসমূহ অতিক্রম করতে পারেন। হতে পারে সে সময় আপনি হয়ত আপনার বিছানায় শুয়ে আছেন অথবা কোন পথ ধরে হেঁটে যাচ্ছেন।