Tuesday , October 23 2018

বিনোদন জগতে ধর্ষণ হয় না, সব হয় সম্মতিতে : শিল্পা

ভারতে ছোটপর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও বিগ বস-১১ বিজয়ী শিল্পা শিন্ধে বলেছেন, বিনোদন জগতে ধর্ষণ হয় না, সবকিছু হয় সম্মতিতে। বিনোদন জগতে যখন যৌন নিপীড়নবিরোধী আন্দোলন তুঙ্গে, ঠিক তখনই এমন মন্তব্য করলেন শিল্পা। অথচ গত বছর তিনি নিজেই এক প্রযোজকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনেছিলেন।







গত বছর টেলিধারাবাহিক ‘ভাবি জি ঘর পার হ্যায়’ প্রযোজক সঞ্জয় কোহলির বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেছিলেন শিল্পা শিন্ধে। এখন বলছেন, যখন কোনো কিছু ঘটবে, তখনই সে ব্যাপারে মুখ খোলা দরকার, কয়েক বছর পর বলার কোনো মানে নেই।







গত মাসে সাবেক ভারতসুন্দরী ও ‘আশিক বানায়া আপনে’-খ্যাত অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত অভিযোগ করেন, ১০ বছর আগে ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবির একটি আইটেম গানের শুটিং চলাকালে পদ্মশ্রী পুরস্কারপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান অভিনেতা নানা পাটেকার তাঁকে যৌন হেনস্তা করেন। ওই ঘটনার পর তিনি ভেঙে পড়েন। ছবির দুনিয়া ছেড়ে চলে যান।







দুই বছর আগে হলিউডে যখন হ্যাশট্যাগ দিয়ে মি টু আন্দোলন চলছিল, তখন কার্যত নীরব ছিল বি-টাউন। তনুশ্রীর অভিযোগের পর নড়েচড়ে বসে বলিউড। এখন বলিউডে চলছে মি টু ঝড়। তনুশ্রীর অভিযোগের পর অনেকেই তাঁদের জীবনে ঘটে যাওয়া যৌন হেনস্তার ব্যাপারে মুখ খুলছেন। ‘হেনস্তাকারী’ হিসেবে উঠে আসছে অনেক জনপ্রিয় তারকার নাম।







ভারতে চলমান মি টু আন্দোলন নিয়ে শিল্পা শিন্ধেকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি ‘রাবিশ’ বলে উড়িয়ে দেন। জুম টিভি ডটকমকে তিনি বলেন, ‘তোমাকে শুধু সে সময়টাতেই জানাতে হবে, এটা একদম সিম্পল। ঠিক সময়ে তোমাকে মুখ খুলতে হবে। এটাই আমার শিক্ষা—যখন হবে, তখনই বলো। পরে বলে লাভ নেই। এর কোনো মানে নেই।’







‘পরে যদি মুখ খোল, কেউ শুনবে না, শুধু বিতর্ক হবে—এর বেশি কিছু না। ঠিক যখন ঘটবে, তখনই তোমাকে বলতে হবে এবং অবশ্যই তোমার ক্ষমতা থাকতে হবে।’







শিল্পা শিন্ধে বলেন, ‘সত্যি বলছি, এ নিয়ে কথা বলতে চাই না। এখন কী হচ্ছে, এ নিয়ে ভাবি—এটা একদম আলাদা—কিছুই পরিবর্তন হবে না। এটা চলতেই থাকবে। আমি জানি না, কেন তারা ইন্ডাস্ট্রির নাম ধ্বংস করছে। মানুষ এখন আমাদের ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে কথা বলছে—এই হচ্ছে, সেই হচ্ছে।’







শিল্পা শিন্ধে মনে করেন, চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রিতে এটা সর্বজনীন সমস্যা নয়। বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রি খারাপ নয়, খুব ভালোও নয়। সবখানেই এসব হয়। আমি জানি না, কেন ইন্ডাস্ট্রির নাম খারাপ করা হচ্ছে। যাঁরা এখানে কাজ করছে, কাজ পাচ্ছে—সব লোক কি খারাপ? এমনটা না, এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে নিজের ওপর—আপনার সামনের মানুষটি কী প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে আর আপনি তাঁকে কী উত্তর দিচ্ছেন। এটা পুরোটাই গিভ অ্যান্ড টেক পলিসি।’







জনপ্রিয় এ টিভি তারকা আরো বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রিতে সবকিছুই হয় পারস্পরিক সম্মতিতে। নারীরা এখন কথা বলছে, কিন্তু এ সময় আমি এ-ও বলতে চাই, ইন্ডাস্ট্রিতে কোনো ধর্ষণ হয় না—জবরদস্তি নেহি হোতা। আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে যা কিছুই হয়, সেটা পারস্পরিক সম্মতিতে।’







‘একবার এক মেয়ে আমাদের সেটে ছোট পোশাক পরে এলো। তাকে জিজ্ঞেস করলাম, কেন তুমি এটা পরেছ? সে বলল, আমি সাক্ষাতের জন্য এসেছি। বললাম, তুমি এসেছ টিভি শোর জন্য। জিজ্ঞেস করলাম, টিভি শোর প্রধান চরিত্র কি এসব পরে? সে খুবই নিষ্পাপ ও সাধারণ ছিল। তাকে বললাম, তোমাকে কে এসব পরতে পরামর্শ দিয়েছে? কে তোমাকে বলেছে যে, এসব না পরলে কাজ পাবে না? যদি তুমি মেধাবী হও, তবেই কাজ পাবে। তোমাকে এ ধরনের পোশাক পরতে হবে না বা কিছু করতে হবে না,’ বলেন শিল্পা।







গত বছর তাঁর অভিযোগের ব্যাপারে চলচ্চিত্র ও টিভি শিল্পীদের সংগঠন ‘সিনটা’ কী ভূমিকায় নিয়েছিল? উত্তরে সিনটা-কে ‘বুলশিট’ বলেন শিল্পা শিন্ধে। ‘প্রত্যেকেই জানে তারা কী করেছিল। কেউ আমাকে সাহায্য করেনি। আর কারো সাহায্যের জন্যও আমি বলিনি, সবাই সব জানে,’ বলেন এ অভিনেত্রী। সূত্র : ডিএনএ।