Wednesday , November 14 2018

চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ

দিনের শুরুটা ভালোই কেটেছিল বাংলাদেশের। সিলেটে সিরিজের প্রথম টেস্টে সফরকারী জিম্বাবুয়েকে প্রথম ইনিংস ২৮২ রানে বেঁধে ফেলে। এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি স্বাগতিকদের। শুরুতেই চার উইকেট হারিয়ে বেশ বিপদেই পড়ে যায় তারা।







আজ রোববার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ ১৮.৩ ওভারে ৪৯ রান তুলেছে, তারা উইকেট হারিয়েছে পাঁচটি।







দলীয় ৮ রানের মাথায় প্রথমে ইমরুল কায়েস (৫) সাজঘরে ফেরেন। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে আরেক ওপেনার লিটন দাসও (৯) আউট হয়ে যান। তরুণ নাজমুল হোসেন শান্তও বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি, ৫ রান করেই প্যাভিলিয়নের পথে রওনা হন। শূন্যরানে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও।







এর আগে জিম্বাবুয়ে আগের দিনের ২৩৬ রানের সঙ্গে যোগ করেছে করেছে মাত্র ৪৬ রান, যাতে তাইজুল একাই নিয়েছেন চার উইকেট। আগের দিনও প্রথম দুটি উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। মোট ছয় উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ের ব্যাটিংয়ের সবচেয়ে বড় আতঙ্ক হয়েছিলেন তিনি।







অবশ্য ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা জিম্বাবুয়ে শুরুতেই চাপে পড়ে যায়। পরে অবশ্য শন উইলিয়ামসের ব্যাট হাতের দৃঢ়তায় কিছুটা ঘুরে দাঁড়ায় তারা। কিন্তু শতকের কাছাকাছি গিয়ে মাহমুদউল্লাহর শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। চার উইকেট হারিয়ে দল যখন কিছুটা চাপে, তখন প্রতিরোধ গড়েছিলেন উইলিয়ামস। সাজঘরে ফেরার আগে তিনি ১৭৩ বলে ৮৮ রান করেন।







এর আগে ব্রায়ান চারি ব্যক্তিগত ১৩ রানে সাজঘরে ফেরেন। তাঁকে সরাসরি বোল্ড করেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন টেইলরও। ব্যক্তিগত ৬ রানে আউট হন তিনি। তিনিও তাইজুলের শিকার। মাসাকাদজা সাজঘরে ফেরার আগে করেন ৫২ রান। সিকান্দার রাজা করেন ১৯ রান।







আর রেজিস চাকাভা ২৮ ও মাসাকাদজা ৪ রান করে সাজঘরে ফিরেন। তবে পিটার মোর শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে দলের ইনিংসটাতে তিন শতকের কাছাকাছি নিতে সবচেয়ে বড় অবদান রাখেন। তিনি হার না মানা ৬৩ রান করেন।