Wednesday , November 14 2018

চলচ্চিত্র পরিচালকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

নির্মাতার সাইনবোর্ডে বেশ কিছু প্রতারকদের কারনে সংস্কৃতির ভুবন এখন কলুষিত। এক প্রযোজককে পথে বসিয়ে অন্য প্রযোজক শিকারে ব্যস্ত রয়েছেন নির্মাতা নামধারী কতিপয় প্রতারক। আর নির্মাতার মুখোশে থাকা এসব প্রতারকদের কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ হয়ে প্রযোজক শুণ্য হয়ে পড়ছে ছোট পর্দার ভুবন। নির্মাতার মুখোশে থাকা তেমনি একজন হলেন মিনহাজ অভি।







মিনহাজ অভি নামের একজন চলচ্চিত্র পরিচালকের বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে পুলিশ। গত বছরের ১৫ নভেম্বর ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালত মোঃ খুরশীদ আলম গ্রেপ্তারি পরোয়ানাটি জারি করেন। খিলক্ষেত থানায় প্রেরিত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নং ৫১৫৪।







মামলার অভিযোগক থেকে জানা যায়, ইসমত আরা লেমন নামের একজন ৪ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে মিনহাজ অভিকে দিয়ে তিনি ছয় পর্বের একটি নাটক নির্মাণ করেন। পর্ব প্রতি ২০ হাজার টাকা লাভ করিয়ে দেয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে সকল দায়-দায়িত্ব নিয়ে তাকে ৫ লক্ষ টাকা পাইয়ে দিবে বলে প্রতিশ্রুতির পাশাপাশি প্রযোজককে ৫ লক্ষ টাকার একটি চেক প্রদান করেন মিনহাজ অভি। পরবর্তীতে ওই চেকটি ব্যাংক কর্তৃক প্রত্যাখাত হয়।







ভুক্তভোগী লেমন বলেন, নিজের পাওনা টাকা আদায়ের জন্য বহুবার আমি অভির সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি। কিন্তু সে আমার ফোন রিসিভ করতোনা। শুধু তাই নয়, অভি পরিচালিত ‘মেঘকন্যা’ নামের একটি চলচ্চিত্র মুক্তির আগে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাসহ আমি পরিচালক সমিতিতেও অভিযোগ করি। কিন্তু কিছুতেই হয়নি। অভিকে ধরার জন্য মিডিয়া সংশ্লিষ্ট সকল জায়গাগুলো হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়াচ্ছি। নিজেকে বাঁচানোর জন্য অভি বারবারই স্থান পরিবর্তন করছে। তার ‘মেঘকন্যা’ ছবিটি মুক্তির সময়ও তাকে রাজধানীর বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহের সামনে খোঁজখুঁজি করেছি, কিন্তু পাইনি।







খিলক্ষেত থানা পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় দেয়া ঠিকানা মতে খিলক্ষেতের বাসায় গিয়ে তারা আসামিকে খুঁজে পায়নি। আসামিকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।