Tuesday , January 22 2019

অনেক দিন পর চেনারূপে তাসকিন

হালকা গোঁফে নিজের চেহারায় কিছুটা পরিবর্তন নিয়ে হাজির হয়েছিলেন বিপিএলের প্রথম ম্যাচে। নতুন ঠিকানা সিলেট সিক্সার্সের জার্সিতে প্রথম ম্যাচে লুক আর পারফরম্যান্স মিলিয়ে অচেনা তাসকিন আহমেদকে দেখা গিয়েছিল। তবে প্রথম ম্যাচে ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটারের ওপরে বোলিং করে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ফিরছেন তিনি। চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে বহুদিন পর দেখা মিলেছে চেনা তাসকিনের।

গতকাল বুধবার বিপিএলের সবচেয়ে উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে তাসকিন নিজের দল সিলেট সিক্সার্সকে জিতিয়েছেন চমৎকার বোলিং করে। তাঁর সময়োপযোগী বোলিংয়ে ৫ রানে চিটাগং ভাইকিংসকে হারিয়ে আসরে প্রথম জয় পেয়েছে সিলেট। নির্ধারিত চার ওভারে ২৮ রান দিয়ে ৪টি উইকেট শিকার করেছেন তাসকিন। সবচেয়ে বড় কথা, দোদুল্যমান ম্যাচটিতে শেষদিকে ঠান্ডা মাথায় দারুণ বোলিং করে চিটাগংকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছেন তিনি।

১৬৮ রানের পুঁজি নিয়ে সিলেটের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার প্রথম ওভারেই বল তুলে দেন তাসকিনের হাতে। কিন্তু শুরুটা ভালো ছিল না তাসকিনের জন্য। তাঁর করা দ্বিতীয় বলেই বিশাল ছক্কা হাঁকান আফগান তারকা মোহাম্মদ শেহজাদ। তবে দুই বল পরেই প্রতিশোধ নেন তাসকিন। মিডঅফে ওয়ার্নারের ক্যাচ বানিয়ে ফিরিয়ে দেন হার্ডহিটার এই ওপেনারকে। আর নিজের দ্বিতীয় স্পেলে এসে আউট করেন ২২ রান করা অভিজ্ঞ আশরাফুলকে।

খেলার টানটান উত্তেজনার সময় অষ্টাদশ ওভারে আবারও তাসকিনকে আক্রমণে নিয়ে আসেন অধিনায়ক ওয়ার্নার। উইকেটে এ সময় ক্রমশ বিপজ্জনক হয়ে ওঠা জিম্বাবুইয়ান সিকান্দার রাজা। অধিনায়কের আস্থার প্রতিদান দিয়ে তাঁকে সরাসরি বোল্ড করেন এই স্পিডস্টার। একই ওভারে নাঈম হাসানকে শূন্য রানে ফিরিয়ে দিয়ে শেষ দুই ওভারে মোহাম্মদ ইরফান আর আল-আমিন হোসেনের কাজটাও সহজ করে দেন তিনি।

তাসকিনের এমন চেনারূপে প্রত্যাবর্তনে সম্ভবত সবচেয়ে খুশি হবেন কোর্টনি ওয়ালশ। দারুণ প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করা ডানহাতি এই গতিতারকাকে বলা হতো দলের বোলিং আক্রমণের পরবর্তী নেতা। কিন্তু ইনজুরি আর ত্রুটিপূর্ণ বোলিং অ্যাকশনের অভিযোগে কিছুদিনের জন্য নিষিদ্ধ হওয়ার পর নিজেকে হারিয়ে খুঁজছিলেন তিনি। অবশেষে বিপিএলে চেনা ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিলেন তিনি।