Tuesday , May 21 2019

হার্ট অ্যাটাকের আগে দেহ যে ৭টি সিগনাল দেয়

হার্ট অ্যাটাকের আগে – আপনি হয়তো ইতোমধ্যেই জানেন হৃদরোগ এবং স্ট্রোক এখন বিশ্বব্যাপী অকাল মৃত্যুর একটি বড় কারণ। হার্ট অ্যাটাক হয় সাধারণত হৃদপিণ্ডে পর্যাপ্ত রক্ত চলাচল কমে গেলে বা বন্ধ হয়ে গেলে।

অথবা রক্ত চলাচলের শিরা-উপশিরাগুলোতে কোনো ব্লক হলে হার্ট অ্যাটাক হয়। তবে আগেভাগেই হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণগুলো ধরতে পারলে হয়তো অকাল মৃত্যু এড়ানো সম্ভব হতে পারে।

হার্ট অ্যাটাকের এক মাস আগে থেকেই দেহ কিছু সতর্কতা সংকেত দিতে শুরু করে। এখানে এমন ৭টি লক্ষণ বাতলে দেওয়া হলো যেগুলো দেখা গেলে বুঝবেন আপনি শিগগিরই হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হতে যাচ্ছেন।

আর লক্ষণগুলো দেখা গেলে দ্রুত ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। আসুন জেনে নেওয়া যাক…

১. অস্বাভাবিক রকমের শারীরিক দুর্বলতা: রক্তপ্রবাহ কমে গেলে এবং রক্ত চলাচল বাধাগ্রস্ত হলে এমনটা হয়। রক্তের শিরা-উপশিরাগুলোতে চর্বি জমে বাধা সৃষ্টি করলে এবং মাংসপেশী দুর্বল হয়ে পড়লে হৃদরোগের প্রধানতম এই লক্ষণটি দেখা দেয়।

২. ঝিমুনি: দেহে রক্তের প্রবাহ কমে গেলে ঝিমুনিও দেখা দেয়। মস্তিষ্কে রক্ত প্রবাহ কমে গেলে ঝিমুনির সৃষ্টি হয়।

৩. ঠাণ্ডা ঘাম: রক্তপ্রবাহ কমে গেলে দেহে ঘাম ঝরলে স্যাঁতসেতে ও ঠাণ্ডা ভাব অনুভূত হবে।

৪. বুক ব্যথা: বুক, বাহু, পিঠ এবং কাঁধে ব্যাথা অনুভূত হলে দ্রুত ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। বুকে ব্যথা এবং সংকোচন হৃৎপিণ্ডের অসুস্থতার একটি বড় লক্ষণ।

৫. ঠাণ্ডা বা ফ্লু: হার্ট অ্যাটাকের শিকার অনেককেই এক মাস আগে থেকে ঠাণ্ডা-সর্দি বা ফ্লু-তে আক্রান্ত হতে দেখা গেছে।

৬. শ্বাসকষ্ট: ফুসফুসে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন এবং রক্ত সরবরাহ না হলে এই ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। হার্টের সমস্যা থাকলে ফুসফুসে রক্ত চলাচল কমে যায়। আর শ্বাসকষ্ট বা শ্বাস ছোট হয়ে আসার মতো সমস্যা দেখা যায়।

৭. বমি, বদহজম, তলপেটে ব্যথা: বমিভাব, বদহজম, বুক হৃৎপিণ্ডে জ্বালাপোড়া করা বা তলপেটে ব্যথাও অনেক সময় হার্ট অ্যাটাকের পূর্ব লক্ষণ হতে পারে। সুতরাং এই লক্ষণগুলো দেখা গেলেও হৃদরোগের ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

শুধু মাত্র পাসওয়ার্ড না দেয়ায় স্বামীকে পুড়িয়ে মারল স্ত্রী

মোবাইলের পাসওয়ার্ড না দেয়ায় স্বামীকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরেছে ইন্দোনেশিয়ার এক নারী। আগুন দেয়ার দুই দিনের মাথায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বামীর মৃত্যু হয়। দেশটির পশ্চিম নুসা টেনগারা প্রদেশের পশ্চিম লুমবোক জেলায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, স্বামী দেদি পুরনামা (২৬) ঘরে কাজ করছিলেন। এসময় তার স্ত্রী ইলহাম চাহায়ানি (২৫) তার কাছে মোবাইলের পাসওয়ার্ড চায়। পুরনামা পাসওয়ার্ড দিতে অস্বীকৃতি জানায়।

এসময় ইলহাম রেগে গিয়ে বোতল থেকে পেট্রোল বের করে পুরনামার গায়ে ঢেলে দেয় এবং লাইটার দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে পুরনামাকে দ্রুত হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে দুই দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনার পর স্ত্রী ইলহামকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। তবে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে কিনা তা জানা যায়নি।

পুলিশের উর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে পুরনামা ইলহামকে আঘাত করে। এর ইলহাম রেগে গিয়ে স্বামীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়।