Wednesday , June 26 2019

শাবাশ বাঙালি! এবার রাজশাহীতেও সেলুন ভিত্তিক পাঠাগার!

খুলনার বটিয়াঘাটা বাজারে ২০১৬ সালে গড়ে তোলা মিলন শীলের সেলুন ভিত্তিক পাঠাগারের জনপ্রিয়তার খবর গণমাধ্যমে এসেছে মাসখানেক আগেই। এবার রাজশাহীর কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগারের উদ্যোগে নগরীতে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে ১০টি সেলুন ভিত্তিক পাঠাগার।

২১ ফেব্রুয়ারি ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের তেরখাদিয়া এলাকার ১০টি সেলুনে ফিতা কেটে ব্যতিক্রমী এই পাঠাগারগুলোর সূচনা করেন সিটি করপোরেশনের ১৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন আনার। কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা ও সেলুন পাঠাগারের উদ্যোক্তা সোহাগ আলী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মাসিদুল হাসান, তেরখাদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লিয়াকত কাদির কুমকুম, বিশিষ্ট সমাজসেবক রবিউল ইসলাম, ব্যবসায়ী গাজী সারোয়ার জামিল, হীরা হেয়ার সেলুনের মালিক খালিদ হোসেন হীরা প্রমুখ।

কর্মসূচির উদ্যোক্তা সোহাগ আলী জানান, কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগার রাজশাহী মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে ৩শ সেলুনে সেলুন ভিত্তিক পাঠাগার গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় নগরীর ১৪ নম্বরে ওয়ার্ডে উপশহর, তেরখাদিয়া, বসুয়া, উপশহর নিউমাকের্ট, বিভাগীয় স্টেডিয়াম এলাকা, তেরখাদিয়া কলেজপাড়া এলাকায় ১০টি সেলুনে পরীক্ষামূলকভাবে সেলুন পাঠাগার কার্যক্রম শুরু হলো।

তিনি বলেন, সেলুনে চুল-দাড়ি কাটতে এসে বেশিরভাগ সময় অপেক্ষা করতে হয়। অপেক্ষার সেই সময়ই বইপড়া অভ্যাস গড়ে তোলার লক্ষে অভিনব কায়দায় বই পড়ানোর দায়িত্ব নিয়েছে কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগার। আপনার বাড়ির পাশের সেলুনেই বিনামূল্যে বই পড়তে পারবেন। প্রয়োজনে আপনি বাসাতেও বই নিতে পারবেন।

উল্লেখ্য, গত ২৪ জানুয়ারি জুমবাংলায় ‘নরসুন্দরের সুন্দর উদ্যোগ, সেলুনের ভেতর লাইব্রেরি‘ শিরোনামে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানা যায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে নিজ সেলুনে মিলন শীলের পাঠাগার গড়ে তোলার খবর। আর এটিই হচ্ছে দেশের প্রথম সেলুন ভিত্তিক পাঠাগার।

খুলনার পর রাজশাহীতে সেলুন ভিত্তিক পাঠাগার চালুকে স্বাগত জানিয়েছেন সমাজবিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, এভাবে পাড়ায় মহল্লায় বইপড়ার আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে পারলে একটি জ্ঞানসমৃদ্ধ সভ্য জাতি হয়ে ওঠা কেউ ঠেকাতে পারবে না।