Wednesday , June 26 2019

স্টাইলে চুল কাটার উপর নিষেধাজ্ঞার নোটিশ প্রত্যাহার

নানামুখি আলোচনা-সমালোচনার পর টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে হেয়ার স্টাইলে চুল কাটাসহ দাঁড়ি ও গোঁফ মডেলিংয়ের ওপর সরকারি ভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করে নগদ টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রেখে নতুন করা আইন তৈরির নোটিশটি প্রত্যাহার করে নিয়েছে উপজেলা শীল সমিতির সংগঠন।

দেশের প্রথম শ্রেণির ও জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা বিডি২৪লাইভ ডটকমসহ বিভিন্ন অনলাইন ও প্রিন্ট পত্রিকায় এ সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসলে শুক্রবার (২২ মার্চ) উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে প্রত্যাহার করে নেয় সমিতি।

নোটিশ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছিল। এ নিয়ে স্থানীয় অনলাইন পত্রিকা ও জাতীয় অনলাইনসহ আর্ন্তজাতিক গণমাধ্যমেও সংবাদ প্রকাশিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ জানান, বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বিষয়টি জেনে ওসি সাহেবের সাথে আলোচনা করি। বিষয়টি নিয়ে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে। ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এরূপ জানালে শীল সমিতির সভাপতি ও সম্পাদককে নিয়ে জরুরী বৈঠকের পর উক্ত নোটিশ প্রত্যাহার করেন।

সমাজে মানানসই নয় এমন হেয়ার স্টাইল না করার জন্য ক্রেতাদের অনুরোধ জানাবেন বলে সেলুন মালিকরা ইউএনও’কে জানিয়েছেন বলে উপজেলা প্রশাসন সূত্র নিশ্চিত করেছে।

জানা যায়, সম্প্রতি ছাত্র ও উঠতি বয়সের যুবকসহ সকলের হেয়ার স্টাইলে চুল কাটাসহ দাঁড়ি ও গোঁফ মডেলিং এবং রঙ না করার বিষয়ে ভূঞাপুর থানার ওসি শীল সদস্যদের ডেকে নিয়ে সতর্ক করে দেন। পরে ভূঞাপুর থানার ওসি রাশিদুল ইসলাম, শীল সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক স্বাক্ষরিত নোটিশ উপজেলার সকল সেলুনে ঝুলিয়ে দেয়া হয়।

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা শীল সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ওসির নির্দেশনায় হেয়ার স্টাইল করে চুল, দাঁড়ি ও গোঁফ কাটা বন্ধ করা হয়েছিল। বর্তমানে ছাত্র ও যুবকরা স্টাইল করে চুল কাটা বন্ধ করে স্বাভাবিকভাবেই চুল কাটাচ্ছে। তবে উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে নোটিশটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।