টিকটকে ভিডিও বানাতে গিয়ে বাথরুমে তরুণের মৃত্যু

ভারতের রাজস্থানের কোটা শহরে টিকটকের ভিডিও বানাতে গিয়ে গলায় চেইন জড়িয়ে মৃত্যু হলো ১২ বছরের এক কিশোরের।

জনপ্রিয় চীনা ভিডিও অ্যাপ্লিকেশন টিকটকে আসক্ত ছিল ওই কিশোর। মঙ্গলবার ভিডিও বানাতে গিয়ে নিজের বাড়ির বাথরুমে গলায় লোহার চেন জড়িয়ে মারা যায় সে।

জানা যায়, ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র কৌশলকে যখন তার বাড়ির লোক উদ্ধার করে, তখন তার হাতে পরা ছিল ব্যাঙ্গেল আর গলায় মঙ্গলসূত্র। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও ডাক্তাররা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, “টিকটক মোবাইল অ্যাপে কোনো ভিডিও রেকর্ডের প্রস্তুতির সময়ই কৌশলের মৃত্যু হয়েছে বলে তার বাবা-মায়ের ধারণা।”

এ ছাড়া কৌশল নানা ভিডিও গেমের প্রতি আসক্ত ছিল বলে পুলিশকে জানিয়েছেন তার বাবা-মা। তারা জানান, বাড়িতে অতিথি আসায় সোমবার সারা রাত জেগে ছিল কৌশল। আর পুরো রাতটাই সে মোবাইলে গেম খেলে।

চীনা জনপ্রিয় অ্যাপটি ভারতে তুমুল জনপ্রিয়। দেশটির ১২০ মিলিয়ন মানুষ নিয়মিত-অনিয়মিতভাবে টিকটক ব্যবহার করছে।

বিভিন্ন গান, বিখ্যাত সিনেমার সংলাপসহ নানা ধরনের মজাদার অডিওর সঙ্গে ঠোঁট মিলিয়ে ভিডিও তৈরি করে আপলোড করা যায় টিকটক অ্যাপে। কিন্তু মজার এ অ্যাপ ঘিরে অভিযোগের শেষ নেই।

পর্নোগ্রাফিতে উৎসাহ দেওয়া ও শিশুদের ঝুঁকিতে ফেলার অভিযোগে সম্প্রতি ভারতে নিষিদ্ধ হলেও পরবর্তীতে আবার চালু হয় এটি।

গত জানুয়ারিতে মুম্বাইতে এক কিশোর নিজের জন্মদিনে আত্মহত্যা করে বসে। কারণ তার দাদি তাকে টিকটিক আসক্তি থেকে তাকে ফেরাতে চেয়েছিলেন।

গত এপ্রিলে দিল্লিতে টিকটকে ভিডিও বানানোর সময় বন্দুক থেকে আচমকা গুলি ছিটকে বন্ধুর হাতে নিহত হন এক তরুণ। কয়েকদিন আগেও মহারাষ্ট্রে একই ধরনের ঘটনা ঘটে, বন্দুক নিয়ে টিকটক করতে গিয়ে গুলিতে মারা যান এক তরুণ।