গভীর রাতের সেই বিনোদন… ভালো লাগলে ভিডিওটি শেয়ার কইরেন

সম্পূর্ণ ভিডিওটি পোষ্টের নিচে দেয়া আছে। ভিডিওটি দেখতে স্ক্রল করে পোষ্টের নিচে চলে যান।

স্বাগতম আপনাকে আমাদের ফেসবুক পেইজের ভিডিওতে। আমাদের চারপাশে প্রতিদিন বাস্তব ও অবাস্তব এমন অনেক কিছু ঘটে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই সকল ঘটনা গুলো আমাদের পেইজে ভিডিও আকারে দেবার চষ্টে করে থাকি।

আমাদের পেইজে যত ভিডিও দেখা যায় এর কোন টাই আমাদের নিজস্ব বানানো ভিডিও নয়, এগুলো সব ইন্টারনেটের থার্ড পার্টি সোর্স যেমন- ফেসবুক পেইজ অথবা ইউটিউব থেকে আমরা শেয়ার করে থাকি।

এই সকল ভিডিও আমরা দিয়ে থাকি শুধুমাত্র সমাজের মানুষদের সতর্ক করার জন্য অথবা কিছু বিনোধন মূলক ভিডিও দিয়ে থাকি আনন্দ পাবার জন্য।
যদি কোন ভিডিও নিয়ে কারো কোন অভিযোগ থাকে তাহলে আমাদের পেইজে মেসেজ করবেন, আমরা সাথে সাথে সেটি বাতিল করব। এই ভিডিও গুলা শুধু মাত্র আমরা শেয়ার দিয়েছি ইন্টারনেটের থার্ড পার্টি সোর্স থেকে তাই এর দায়ভার আমাদের পেইজের নয়।

ভিডিওটি পোষ্টের নিচে দেয়া আছে। ভিডিওটি দেখতে স্ক্রল করে পোষ্টের নিচে চলে যান।

আরো পড়ুনঃ

নিজের বোনকে পাহারা রেখে ১৩ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণ! পড়ুন চাঞ্চল্যকর ঘটনা

ফের প্রকাশ্যে এল আরও এক ধর্ষণের ঘটনা। তবে এবারের ছবিটা আরও মারাত্মক। ধর্ষকের বয়স ১৭। নিজের বোনকে সামনে বসিয়ে ১৩ বছরের এক কিশোরীকে সে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ। এমনকি অভিযুক্তের বাবা-মা’ও এসে বেধড়ক পিটিয়ে যায় নাবালিকাকে।

আপাতত আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে নির্যাতিতা কিশোরী। মঙ্গলবার উত্তরপ্রদেশের কানপুরে ঘটেছে এই ঘটনা। ওই মেয়েটির পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতিবেশী এক কিশোরকে বুধবার আটক করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে গ্রেফতার করা হয়েছে তার মা-বাবাকেও।

কানপুরের দেহাত জেলার ডিআইজি রতনকান্ত পাণ্ডে জানিয়েছেন, মঙ্গলবার পুলিশের কাছে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছেন শিভলি শহরের বাসিন্দা ওই কিশোরীর পরিবার। পুলিশের কাছে কিশোরী জানিয়েছে, রবিবার তার পাশের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটেছে। বছর ষোলোর ওই অভিযুক্ত কিশোরের বোনের সামনেই তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে দাবি ওই মেয়েটির। ধর্ষণের পর ওই কিশোর তাকে বেধড়ক পেটাতে থাকে বলেও জানিয়েছে সে। তাতে যোগ দেয় অভিযুক্তের মা-বাবাও। এমনকী, এ নিয়ে কাউকে কিছু জানালে তার ফল ভাল হবে না বলেও জানান তাঁরা।

এরপর বাড়ি যায় ওই কিশোরী, বাড়ি ফিরে মা-বাবাকে গোটা ঘটনা খুলে বলে। ধর্ষণ ও মারধরের জেরে গুরুতর আঘাত লেগেছে তাঁদের মেয়ের। তাকে প্রথমে জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে কানপুরের একটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। ওই কিশোরীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। অভিযুক্ত ও তার মা-বাবাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।