প্রথম শীর্ষ বৈঠকে বসছেন ট্রাম্প-পুতিন

ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিঙ্কিতে সোমবার ঐতিহাসিক বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বৈঠকে যোগ দিতে এরই মধ্যে সস্ত্রীক হেলসিঙ্কি পৌঁছেছেন ট্রাম্প। হেলসিঙ্কির প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেসে পুতিনের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন তিনি।

বৈঠকের আগেই ট্রাম্প অবশ্য বলেছেন, এই আলোচনা নিয়ে তার আশা কম। তবে এটাও বলেছেন, হয়তো এখান থেকে ভালো কিছুও আসতে পারে। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।
আধঘণ্টার নির্ধারিত বৈঠকের পর এই দুই নেতা যৌথ সংবাদ সম্মেলন করবেন। ট্রাম্প-পুতিনের বৈঠকে পরমাণু অস্ত্র প্রতিযোগিতা, সিরিয়া ইস্যু এবং মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হতে পারে।
বৈঠকের ঠিক একদিন আগেই ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ১২ রুশ গোয়েন্দার বিরুদ্ধে হ্যাকিংয়ের অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন মার্কিন বিশেষ তদন্ত কর্মকর্তা রবার্ট মুয়েলার।

ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, এই ইস্যুটিও আলোচনায় তুলবেন তিনি। তবে এ নিয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক এজেন্ডা এখনো ঠিক করা হয়নি।
শুক্রবার মার্কিন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রড রোজেনস্টাইনের ঘোষণার পর থেকেই নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের আনুষ্ঠানিক অভিযোগের ভিত্তিতে আপাতত বৈঠক বাতিল করার আহ্বান জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট অনেকেই। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আলোচনার সিদ্ধান্তেই অটল রইলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।
রাশিয়া আবারও এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছে, এই বৈঠকের প্রতিক্ষায় রয়েছে রুশ সরকার। দেশটি এই আলোচনাকে দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্কের উন্নয়নের একটি বাহন হিসেবে দেখছে।

ট্রাম্প-পুতিনের নির্ধারিত বৈঠকের আগে হেলসিঙ্কিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ট্রাম্প বিরোধীরা। বৈঠকের সময় আরও বড় ধরনের বিক্ষোভ করার প্রস্তুতিও তারা নিচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।