‘আমি আমার মেয়ের কাছে ফিরতে চাই, সবার দোয়া ও সহযোগিতা চা

লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হয়ে ভারতের চেন্নাইয়ে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন চট্টগ্রাম ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক রাজীব মীর। অন্যদিকে তার ১৪ মাস বয়সী মেয়ে বিভোরের দিন কাটছে বাংলাদেশে মা সুমনা খানের সঙ্গে। মেয়ে প্রায় দুই মাস ধরে সরাসরি বাবাকে দেখতে পাচ্ছে না। বাবা-মেয়ের দেখা হয় ভিডিও কলে বা ছবিতে।

ইতোমধ্যে ডাক্তাররা জানিয়ে দিয়েছেন রাজীবের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা বড় জোড় দুমাস। এই দুই মাসের হিসাব থেকেও প্রতিদিন একটু একটু সময় কমছে, আর রাজীব মীর এগিয়ে যাচ্ছেন মৃত্যুর দিকে। এই সময়ের মধ্যে অস্ত্রোপচার করে লিভার প্রতিস্থাপন করা না গেলে হয়তো সবার সব চেষ্টা ব্যর্থ হবে।

সোমবার সন্ধ্যায় টেলিফোনে রাজীব মীর বলেন, ‘আমি খবর পেয়েছি, আমার চিকিৎসার সহায়তায় আমার পরিবার, বন্ধু, স্বজন, এমনকি অপরিচিত মানুষজনও এগিয়ে এসেছেন। আমি আমার মেয়ের কাছে ফিরতে চাই। সবার দোয়া ও সহযোগিতা থাকলে ভালো হয়ে দেশে ফিরতে চাই।’

দ্রুততম সময়ের মধ্যে যদি অপারেশন করে লিভার প্রতিস্থাপন করা যায় তাহলে তিনি বাঁচবেন। এদিকে তাকে বাঁচানোর জন্য ইতোমধ্যেই এগিয়ে এসেছেন একজন সহৃদয় ব্যক্তি। তিনি নিজের লিভারের একটি অংশ রাজীবকে দান করতে রাজী হয়েছেন। ডাক্তারেরাও প্রস্তুত।

কিন্তু রাজীবের অপারেশানের জন্য দরকার ৬০ লাখ টাকা। আর তার সামগ্রিক চিকিৎসা ব্যয় নির্বাহ করতে প্রয়োজন প্রায় ৯০ লাখ টাকা। এত বিপুল অর্থ রাজীবের নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে কোনোভাবেই ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়।

কিন্তু আপনি-আমি টাকার যোগান দিতে পারি। আমরা সবাই মিলে যদি চেষ্টা করি রাজীবের চিকিৎসার টাকাটা উঠে যাওয়া একটা সামান্য সময়ের ব্যাপার মাত্র। সকলের প্রচেষ্টায় ইতোমধ্যে প্রায় ৪০ লাখ টাকা যোগাড় হয়েছে। তার অপারেশনটা করতে প্রয়োজন আর মাত্র ২০ থেকে ২২ লাখ টাকা। কিন্তু আমরা আপনার কাছে ১ লাখ বা ১০ হাজার বা ১ হাজার টাকা চাই না। আমরা আপনার কাছে ১০টি মাত্র টাকা চাই। রাজীবকে বাঁচানোর জন্য আপনি ১০টি টাকা বিকাশ করুন। আপনার ও আমার মতন দুই লাখ মানুষ ১০ টাকা করে দিলে মাত্র এক ঘণ্টার মধ্যেই ২০ লাখ টাকা তোলা সম্ভব।

আপনারা যারা সিগারেট খান, তারা একটি বেনসন খুচরো কিনতে গেলে খরচ করতে হয় ১১ টাকা। আমরা একটি বেনসনের টাকাও চাই না আপনার কাছে। একটি বেনসনের চেয়েও কম মূল্যে, মাত্র ১০ টাকায়, আপনি বাঁচাতে পারেন রাজীবের জীবন।

দেশে রয়েছে প্রায় শ দুয়েক সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছে আমাদের অনুরোধ একটি সিগেরেট কম খেয়ে আপনি রাজীবকে ১০টি টাকা দান করুন।

দেশের সকল তরুণ-তরুণীর কাছে আমাদের সকাতর মিনতি, দুইটা সিঙ্গারার টাকা বাঁচিয়ে, একবেলার রিকশা ভাড়া বাঁচিয়ে, ইফতার পার্টিতে একটা ডিমের চপ না খেয়ে রাজীবের জন্য ১০টি টাকা সাহায্য করুন।

আসুন, আমরা সকলে রাজীবের ভাই হয়ে, বন্ধু হয়ে, স্বজন হয়ে, রাজীবের পাশে দাড়াঁই। আসুন, ১০টি মাত্র টাকা বিকাশ করে মুছে দিই এক মায়ের কান্নাভেজা চোখ। ১০টি মাত্র টাকা দিয়ে রাজীবের কন্যার মুখে ফিরিয়ে আনি হাসির ধারা।

রাজিবকে সাহায্য পাঠাতে বিকাশ নাম্বার: ০১৭৯২৪৫৫৮২৮, ০১৭৪৮৭২৫ ৫৯৯, ০১৭১১২৭৮৫২৬
ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার: Sayeda Farjana Yasmin, a/c 186.103.19648, Dutch Bangla Bank, Munshigonj Branch, Munshigonj.

সৈয়দা ফারজানা ইয়াসমিন, হিসাব নম্বর: ১৬৭৭৭, ইসলামী ব্যাংক, নিউ মার্কেট শাখা, ঢাকা।

বিদেশ থেকে টাকা পাঠাতে পারেন এই ঠিকানায়: A.T.M. Akhtar Uddin, 227/ 3A/ 2, Old-19, Zigatola, Dhanmondi, Dhaka,Bangladesh. Cell: 01792455828