Thursday , September 19 2019

মার্কিন প্রখ্যাত মনোবিজ্ঞানীর ইসলাম ধর্ম গ্রহণ

মা’র্কিন যুক্তরাষ্ট্র নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার সম’র্থকেরা নির্বাচনী প্রচারণার সময় থেকে মু’সলিম ও ইস’লামভীতি অনুভূতি প্রকাশ আসছেন। তাদের ইস’লামভীতির কারণে দেশটিতে মু’সলিম’রা বিশেষ করে মু’সলিম নারীরা নানা হেনস্তার শিকার হচ্ছেন।

তারপরেও দেশটিতে থেমে নেই ইস’লামের জয়যাত্রা। মু’সলমানদের বি’রুদ্ধে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘৃ’ণাত্মক ভাষা ব্যবহার বরং দেশটির অমু’সলিম’দের ইস’লাম ও

কোরআন নিয়ে গবেষণা করতে উৎসাহিত করছে এবং পরে তারা ইস’লামকেই আঁকড়ে ধরছে। তেমনই একজন লিসা শানকিন। মু’সলমানদের বি’রুদ্ধে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘৃ’ণাত্মক বক্তৃতা এই আমেরিকান নারীকে ইস’লামে ধ’র্মান্তরিত করতে সহায়তা করেছে।

তার ইস’লাম গ্রহণ নিয়ে সম্প্রতি তিনি সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে একটি পোস্ট দিলে তা মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। লিসা শানকিন একজন সাবেক সাইকোথেরাপিস্ট। তিনি মনোবিজ্ঞানের ওপর শার্লট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েট সম্পন্ন করেন।

তিনি তার ফেসবুকে পেজে লিখেছেন, ট্রাম্পের ঘৃণ্য বাগাড়ম্বরপূর্ণ উক্তি আমাকে একটি বছর আগে কোরআন নিয়ে অধ্যয়ন করতে পরিচালিত করেছে (বিশ্ববিদ্যালয়ে তুলনামূলক ধ’র্মের অধ্যয়নের সময় যা আমা’র পড়া হয়নি) এবং ঘনিষ্ঠভাবে এটি অধ্যয়ন করছি। শানকিন ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে হিজাব পরা শুরু করেন। এ দিন ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন।

তিনি বলেন, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে ২০১৭ সালের ২০ জানুয়ারি যে দিন ট্রাম্প শপথ নিবেন; সেই দিন থেকে আমা’র প্রকাশ্যে হিজাব পরা শুরু হবে। বিশ্বে আমেরিকাতেই সবচেয়ে বেশি ইস’লামে ধ’র্মান্তরের ঘটনা ঘটছে।

৯/১১ পর মু’সলমানদের বি’রুদ্ধে তীব্র ঘৃ’ণা ছড়ালেও সেখানে এ পর্যন্ত প্রায় দুই হাজার মানুষ ইস’লাম গ্রহণ করেছে।