Thursday , September 19 2019

রান্নাঘরের দুর্গন্ধ দূর করুন একদম ঘরোয়া কিছু উপায়ে !!

মাংস কাটাকুটি আর রান্নাবান্নার পর রান্নাঘরের অবস্থা খারাপ হয়ে গেছে। কেমন একটা বিশ্রী গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে রান্নাঘর জুড়ে । আর রান্নাঘর একবার গন্ধ হলে সহজে যেতে চায় না। যতই পরিষ্কার করা হোক না কেন গন্ধ যেন থেকে যায়। শুধু ডিটারজেন্ট দিয়ে পরিষ্কার করলে এই গন্ধ দূর হয় না। এর জন্য চাই বাড়তি ব্যবস্থা। আসুন জেনে নিই রান্নাঘরের দুর্গন্ধ দূর করার জন্য কিছু ঘরোয়া উপায়।

১। বেকিং সোডা
যেকোন গন্ধ দূর করার ক্ষেত্রে বেকিং সোডা অনেক বেশি কার্যকরী। রান্নঘর ভাল করে ঝাড়ু দিন। তারপর পানির সাথে কিছু বেকিং সোডা মিশিয়ে রান্নাঘরটি মুছে ফেলুন। দেখবেন রান্নাঘরের গন্ধ একদম গায়েব হয়ে গেছে।

২। ভিনেগার
ভিনেগার বেকিং সোডার মত দুর্গন্ধ দূর করতে সাহায্য করে থাকে। এক কাপ ভিনেগার রান্নাঘরের এক কোনায় রেখে দিন। দেখবেন রান্নঘরের দুর্গন্ধ দূর হয়ে গেছে। যে কাপে ভিনেগার রাখবেন সেটি অব্যশই ঢাকনা দিবেন না। রান্নঘরের সিংক পরিষ্কার করতেও ভিনেগার অনেক কার্যকরী।

৩। লেবুর রস
রসূন, মাছ, মাংসের গন্ধ দূর করতে লেবুর রস অনেক বেশি কাজ করে থাকে। রান্নাঘর মোছার সময় পানিতে কয়েক চামচ লেবুর রস দিয়ে দিন। এবার এই পানি দিয়ে রান্নাঘরটি মুছে ফেলুন। লেবুর রস হাত থেকে মাছ মাংসের গন্ধও দূর করে থাকে। মাছ বা মাংস কাটার পর এক টুকরো লেবু নিয়ে হাতে ঘষুন তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন গন্ধ দূর হয়ে গেছে।

৪। মশলা
রান্না কাজে ব্যবহৃত মশলাও রান্নঘরের দুর্গন্ধ দূর করতে সাহায্য করে থাকে। চুলায় পানির মধ্যে দারচিনি, লবঙ্গ তেজপাতা, এলাচি দিয়ে ফুটতে দিন। কিছুক্ষণ ফুটানোর পর দেখবেন একটি সুন্দর গন্ধে রান্নাঘর ভরে গেছে। কিছুক্ষণ এই মশলা পানি রাখলে রান্নঘরের দুর্গন্ধ দূর হয়ে যাবে।

টিপস
১। রান্নাঘরের ড্রেন নিয়মিত পরিষ্কার করুন। ড্রেনের নিচে পড়ে থাকা খাবারে অবশিষ্টাংশ, ময়লা থালাবাসন ধোয়ার পরপরই পরিষ্কার করে ফেলুন। দুর্গন্ধ সৃষ্টি হওয়ার একটি অন্যতম উৎস এই ময়লা আবর্জনা।
২। রান্না করা হাড়ি পাতিল ধোয়ার জন্য পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন।
৩। রান্নার আগে এবং পরে রান্নঘরের জানলাটা খোলা রাখুন। এতে করে রান্নার গন্ধ বাইরে চলে যাবে আবার বাতাসও চলাচল করতে পারবে। এক্সস্ট ফ্যান ব্যবহার করলে ও মাঝে মাঝে জানলাটা খোলা রাখুন।
৪। থালা বাসন মাজার স্পঞ্জটি প্রতি সপ্তাহে পরিবর্তন করুন। এটি থেকেও দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়।
৫। রান্নার সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল চুলা। অথচ এই চুলাকে আমরা সবচেয়ে বেশি অবহেলা করে থাকে। প্রতি সপ্তাহ না হোক দুই সপ্তাহ পর পর চুলাটা পরিষ্কার করুন।