Thursday , September 19 2019

ক’নডমের ভেতরে ই’য়াবা ভরে খেয়ে ফেলতো তারা!

গাজীপুর মহানগরীর বাসন থানা এলাকা থেকে অ’ভিনব কায়দায় মা’দক পরিবহনকালে মা’দক চো’রকারবারী চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রে’ফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যা’ব)। এ সময় বিপুল পরিমাণ ই’য়াবা ও অন্যান্য মা’দক দ্রব্যও উ’দ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যা’ব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. সারওয়ার-বিন-কাশেম এসব কথা জানিয়েছেন।

তিনি জানান, গতকাল রাতে র‌্যা’ব-১ এর একটি আভিযানিক দল গো’পন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, গাজীপুর মহানগরীর বাসন থানা এলাকায় কতিপয় মা’দক ব্যবসায়ী ঢাকার দিকে আসছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে আভিযানিক দলটি বাসন থানার ওয়্যারলেস গেইট টু বিআরটিসি ডিপো রোডস্থ টিএন্ডটি অফিসের দক্ষিণ পাশে অ’ভিযান পরিচালনা করে।

অ’ভিযানকালে চারজন মা’দক ব্যবসায়ীকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। তারা হলেন, মো. ফারুক হোসেন (৩৭), মো. শফিকুল ইস’লাম ওরফে রমজান (২৯), আক্তারা বেগম (২৮) ও গৌতম চন্দ্র শীল (৩২)।

তিনি আরও জানান, এ সময় আ’সামিদের কাছ থেকে ৭ হাজার ৫৮৫ পিস ই’য়াবা, ২১ ক্যান বি’য়ার, ২৩ বোতল ফে’নসিডিল, ৯টি মোবাইল ফোন, একটি মোটরসাইকেল ও এক লাখ ৬০ হাজার টাকা উ’দ্ধার করা হয়।

গ্রে’প্তারকৃত আ’সামিদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যা’ব জানায়, তারা একটি সংঘবদ্ধ মা’দক চো’রাচালানকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা কক্সবাজার জে’লার সীমান্তবর্তী এলাকা টেকনাফ দিয়ে মিয়ানমা’র থেকে অ’বৈধভাবে চো’রাচালানের মাধ্যমে ই’য়াবার চালান বিমান, ট্রেন অথবা সড়ক পথে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশে এলাকায় নিয়ে আসে।

জিজ্ঞাসাবাদের তথ্যের ভিত্তিতে ই’য়াবা পাচারের অ’ভিনব কৌশল স’ম্পর্কে র‌্যা’ব জানায়, তারা ই’য়াবা ট্যাবলেটের চালান পেটের ভেতরে করে টেকনাফ থেকে ঢাকায় নিয়ে আসত। তারা তাদের এই অ’ভিনব পন্থার প্রাথমিক পর্যায়ে ই’য়াবা ট্যাবলেটের চালানটি ৫০ পিস করে কন’ডমের ভিতরে রাখে। এরপর কসটেপ পেচিয়ে তা খেয়ে ফেলে। যাতে ইয়া’বা ট্যাবলেটগুলো নষ্ট না হয়। পরবর্তীতে ইয়া’বা ট্যাবলেটের চালানটি ঢাকায় নিয়ে আসার পর বেশি করে পানি অথবা অন্য খাবার খেলে পেটে চাপ পরে এবং খালি জায়গায় তা বের করে। তখন ই’য়াবার চালানটি পলিথিনের জিপারে করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় হস্তান্তর করতেন তারা।

গ্রে’প্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যা’ব জানায়, সে বিগত প্রায় ১০ বছর যাবত গার্মেন্টেসে চাকুরি করত। বর্তমানে সে এলাকায় ইটের ব্যবসা করে। ইটের ব্যবসায় লাভবান না হওয়ায় স্বল্পসময়ে অধিক লাভবানের আসায় সে মাদ’ক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। গ্রে’প্তার অ’পর আ’সামি গৌতম তার ই’য়াবা ট্যাবলেট ব্যবসার কাজে সহযোগিতা করে।

গ্রে’প্তার হওয়া আ’সামি শফিকুল’কে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যা’ব জানায়, সে একজন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী। ফারুক গাজীপুরের দুলালের মাধ্যমে মা’দকদ্রব্য ই’য়াবা ট্যাবলেটের ব্যবসা করে আসছে। এছাড়াও গ্রে’প্তার আক্তারা ও গৌতম তাদের সহযোগী হিসেবে কাজ করে বলে জানিয়েছেন তিনি। সূত্র : আমাদের সময়